ফেসবুক থেকে আয় করার উপায় (100% পরিক্ষীত)

ফেসবুক থেকে আয় করার উপায়

ফেসবুক সোসাল মিডিয়ার অন্যতম প্লাটফর্ম। ফেসবুক থেকে আয় করার উপায় সম্পর্কে আমরা সবাই জানতে চাই। কিভাবে ফেসবুক থেকে আয় করা যায়। কিন্তু সঠিক জ্ঞান না থাকায় ফেসবুক থেকে আয় করা সম্ভবপর হয়ে উঠে না। ফেসবুক চেনে না এমন মানুষ খোজে পাওয়া কঠিন। ফেসবুকে আমরা নিত্যপন্য ক্রয়-বিক্রয় করে থাকি। ফেসবুকে আমরা একে অপরের সাথে চ্যাট করে থাকি। ফেসবুকে আমরা একে অপরের সাথে বুন্ধত্ব গড়ে তুলি। এই ফেসবুকে আমারা দিনের অধিকাংশ সময় ব্যয় করে থাকি। কিন্তু কিভাবে ফেসবুক থেকে আয় করা যায় সেটা আমরা অনেকেই জানি না। আজ আমরা আলোচনা করবো কিভাবে ফেসবুক থেকে আয় করা যায়। আমার বিশ্বাস এই আর্টিকেল যদি মনোযোগ সহকারে পড়েন এবং সঠিক ভাবে ইউটিলাইজ করতে পারেন অবশ্যই ইনকাম করতে পারবেন।

ফেসবুক থেকে আয় করার উপায় :

ফেসবুক থেকে আয় করার বিভিন্ন উপায় বা ষ্ট্রেটিজি রয়েছে। এই সমস্ত আয়ের উপায় এবং স্টেটিজি গুলো সঠিক ভাবে ইমপলিয়েমেন্ট করতে পারলে 100% ফেসবুক থেকে আয় করতে পারবেন। ফেসবুক থেকে আয়ের উপায় গুলো সম্পর্কে জানতে হলে আগে আপনার একটি একটিভ ফেসবুক আইডি থাকতে হবে। আশা করি নিশ্চয় একটি ফেসবুক আইডি বা একাউন্ট রয়েছে। হয়তো ভাবছেন কার আবার আইডি নেই। সবারই তো আইডি রয়েছে। ঠিক আছে শুধু আইডি থাকলেই হবে না সে আইডিটি ফেক হওয়া যাবে না। একটি রিয়াল আইডি হতে হবে। আইডির সাথে আপনার ন্যাশনাল আইডির মিল থাকতে হবে। এবার এই আইডির আন্ডারে একটি ফেসবুক ফ্যান পেজ বা বিজনেস পেজ তৈরি করতে হবে। এই পেজ থেকে আপনি আয় করতে পারবেন।

ফেসবুক আয়ের বিভিন্ন টপিক বা ষ্ট্রেটিজি :

1. ফেসবুক পেজ তৈরি করে আয় :

2. ফেসবুক পেজ সেটাপ বা এস ই ও করে আয় :

3. ফেসবুক পেজ ব্যানার ও লোগো সেটাপ করে আয় :

4. ফেসবুক পোষ্ট তৈরি করে আয় :

5. ফেসবুক গ্রুপ তৈরি করে আয় :

6. ফেসবুক এডস ক্যান্পিইন তৈরি করে আয় :

7. ফেসবুক পিক্সেল সেটাপ করে আয় :

8. ফেসবুক চ্যাপবট সেটাপ করে আয় :

1. ফেসবুক পেজ তৈরি করে আয় :

ফেসবুক পেজ ক্রিয়েট বা তৈরি করে আয় করতে পারবেন। আপনি যদি কোন ব্যবসা করে থাকেন তাহলে আপনার একটি ফেসবুক বিজনেস পেজ তৈরি করতে হবে। এই বিসনেজ পেজে আপনার প্রোডাক্ট আপলোড করে প্রচার ও প্রসার করে ইনকাম করতে পারেন। শুধু ব্যবসা না যে কোনো সার্ভিস প্রোভাইড করে ফেসবুক পেজ থেকে ইনকাম করা যায়। আপনার ব্যবসা বা সার্ভিস সম্পর্কে কন্টেন্ট তৈরি করে ফেসবুক পেজে আপলোড দিতে হবে। তাহলে এখান থেকে আপনার প্রোডাক্ট বা সার্ভিস সেল হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে এবং আয় আসতে থাকবে। প্রশ্ন হচ্ছে কিভাবে পেজ তৈরি করবো ? পেজ তৈরি করতে হলে প্রথমে আপনার ফেসবুক আইডি ওপেন করুন। তখন নিচের ইন্টারফেসের মতো আপনার ফেসবুকের ইন্টারফেস দেখতে পাবেন।

ফেসবুক থেকে আয় করার উপায়- 1 :

ফেসবুক থেকে আয় করার উপায়- 1

এই ইন্টারফেসে লাল তীর চিহ্ন দিয়ে দেখানো Page এ ক্লিক করুন। তখন নিচের মতো একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন।

Page Create 2 :

Page Create 2

এই ইন্টারফেসে আয়াতাকার ঘরে তীর চিহ্ন দিয়ে দেখানো Create new page এ ক্লিক করুন। তখন নিচের মতো একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন।

Page Create 3 :

Page Create 3

এই ইন্টারফেসে এক নম্বার তীর চিহ্নি স্থানে Page name required স্থানে আপনার পেজের নাম লিখুন। অর্থাৎ আপনি যে নামে পেজ খোলতে চাচ্ছেন তার নাম দিন। তারপর দুই নম্বার তীর চিহ্নিত স্থানে Category required এর জায়গায় আপনি কোন ক্যাটাগরির পেজ খোলতে চাচ্ছেন সে ক্যাটাগরি সিলেক্ট করে দিন। তিন নম্বার স্থানে Bio Optional এর জায়গায় আপনার পেজ সম্পর্কিত দুই/তিন লাইন কিছু লিখে দিন। তারপর নিচে Create Page এ ক্লিক করুন। বাছ আপনার ফেসবুক পেজ তৈরি হয়ে গেছে। এবার পেজটিতে লোগো, ব্যানার সেট করতে হবে এবং এস ই ও করতে হবে। এই রকম ফেসবুক পেজ তৈরি করে অনলাইন থেকে আয় করতে পারেন। ফাইবার, আপওয়ার্কসহ অনেক অনলাইন মার্কেটপ্লেস গুলোতে ফেসবুক তৈরি কাজের অফার পাবেন।

2. পেজ সেটাপ বা এস ই ও করে আয় :

পেজ তৈরি করার পর পেজকে এস ই ও করতে হবে। প্রশ্ন হচ্ছে এস ই ও কিভাবে করবো। এস ই ও এর এভরিভেশেন হচ্ছে সার্চ ইন্জিন অপটিমাইজেশন। এস ই ও করতে হলে আপনার কন্টাক্ট ইনফো এবং ব্যসিক তথ্য দিতে হবে। অর্থাৎ আপনার পেজ সম্পর্কিত দু/তিন লাইন বর্ননা লিখতে হবে। এই বর্ননার মধ্যে আপনার পেজের নাম অবশ্যই দুইবার বা নূন্যতম একবার থাকতে হবে। তারপর আপনার মোবাইল নম্বার, ই-মেইল নম্বার, ওয়েবসাইট নাম, পেজ কয়টা থেকে কয়টা পর্যন্ত খোলা থাকে ইত্যাদি ইত্যাদি তথ্য দিয়ে অপটিমাইজ করতে হবে। এই ধরনের এস ই ও সার্ভিস দিয়েও ক্লায়েন্টের নিকট থেকে আয় করতে পারেন।

3. ফেসবুক পেজ ব্যানার ও লোগো সেটাপ করে আয় :

ফেসবুক পেজে সুন্দর ব্যানার ও লোগো সেটাপ করতে হবে। ব্যানার সাইজ হবে 820 পিক্সেল বাই 360 পিক্সেল । ব্যানারে আপনার পেজের নাম সহ কিছু আকর্ষনীয় ছবি ও তথ্য দিতে পারেন। আর লোগো সাইজ হবে 800 পিক্সেল বাই 800 পিক্সেল সাইজ। লোগেতে আপনার নিজের ছাবি বা যে কোন সুন্দর একটি লোগো তৈরি করেও বসাতে পারেন। ফেসেবুক পেজের ব্যানার ও লোগো ভালো হলে তা মানুষকে আকৃষ্ট করবে। ফলে মানুষ আপনার পেজে আসার জন্য আকর্ষন বোধ করবে। এই ধরনে ব্যানার ও লোগো তৈরির সার্ভিস দিয়েও আপনি ফেসবুক থেকে ইনকাম করতে পারবেন। ব্যানার তৈরি এবং লোগো তৈরি করতে আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজ জেনে নিতে পারেন। আর তা সম্ভব না হলে সহজে ব্যানার ও লোগো তৈরি করতে পারেন ক্যানভা ডট কম সাইট দিয়ে। ক্যানভা ডট কম সাইট থেকে সহজে আকর্ষনীয় ডিজাইন তৈরি করতে পারেন। ক্যানভা ডট কমে আপনার ইমেইল দিয়ে রেজিষ্ট্রেশন করুন এবং সহজে ব্যানার, লোগো তৈরি করুন।

4. ফেসবুক পোষ্ট তৈরি করে আয় :

ফেসবুক পেজ তৈরি করা, ফেসবুক ব্যানার ও লোগে তৈরি করার পর ক্লায়েন্ট আপনাকে ফেসবুকে পোষ্ট তৈরি করতে বলতে পারে। ফেসবুকে পোস্ট তৈরি হচ্ছে ফেসবুকের পেজের প্রচার বা সার্ভিস দিতে কন্টেন্ট তৈরি করতে হবে। কন্টেন্ট তৈরি করার পর তা পেজে পোস্ট করতে হবে। ফেসবুক পেজে পোস্ট তৈরির কাজ করেও আপনি ইনকাম করতে পারেন। অনেক ক্লাইন্টের হাতে সময় থাকে না তাই তারা ফেসবুকে পোস্ট তৈরি করে আপলোড দেওয়ার জন্য ফ্রিল্যান্সারদের হায়ার করে থাকে। তাই আপনি ফেসবুকে পোস্ট তৈরির কাজ করেও ইনকাম করতে পারেন।

5. ফেসবুক গ্রুপ তৈরি করে আয় :

ফেসবুক গ্রুপ তৈরি হচ্ছে ফেসবুক পেজের মতোই আপনাকে একটি পেজের মাধ্যমে গ্রুপ তৈরি করতে হবে। ফেসবুক গ্রুপের একট নাম দিতে হবে, গ্রুপে সুন্দর একটি ব্যানার সেট করতে পারেন। গ্রুপে সদস্য সংগ্রহ করতে হবে। গ্রুপে মাঝে মাঝে আকর্ষনীয় পোস্ট করতে হবে। আপনি কি ধরনের সার্ভিস দিতে চাচ্ছেন সে রিলেটেড একটি গ্রুপ তৈরি করতে হবে। ধরুন, আপনি কোন জিনিস বা প্রোডাক্ট বিক্রয় করতে চাচ্ছেন। তাহলে আপনাকে Buy And Sell গ্রুপ তৈরি করতে হবে। এই গ্রুপের সদস্য সংখ্যা যতো বেশি বাড়াতে পারবেন ততো আপনার প্রোডাক্ট বিক্রি হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। মোট কথা ফেসবুকে একটি গ্রুপের মাধ্যমে যে কোন প্রোডাক্ট ও সার্ভিস দিয়ে আপনি ইনাকম করতে পারেন। এই ধরনের গ্রুপ নিয়ন্ত্রনের জন্য বায়ার আপনাকে নিয়োগ দিতে পারে। তাই ফেসবুক গ্রুপ তৈরি এবং মেইনটেন্সের মাধ্যমে আপনি ইনকাম করতে পারেন।

6. ফেসবুক এডস ক্যান্পিইন তৈরি করে আয় :

ফেসবুক এডস ক্যান্পিইন হচ্ছে ফেসবুকের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন প্রচার করা। আপনি কোনো জিনিস বা প্রোডাক্ট বিক্রি করতে চাইলে এডস ক্যান্পিইন তৈরি করতে পারেন। ফেসবুকের এডস ক্যান্পিইন হচ্ছে প্রোডাক্ট বিক্রয় করার একটি শক্তিশালী মাধ্যম। এডস ক্যান্পিইন পরিচালনা করতে হলে আপনাকে পেইড করতে হবে। পেইড বা টাকা ছাড়া এডস ক্যান্পিইন পরিচালনা করা যায় না। এডস ক্যান্পিইন পরিচালনা করতে হলে আপনার একটি ফেসবুক পেজ থাকতে হবে। এডস ক্যান্পিইন একটি জটিল প্রক্রিয়া। আপনাকে সঠিক ভাবে শিখে নিয়ে এই কাজ করতে হবে। নতুবা আপনার টাকা জলে নষ্ট হবে। ফেসবুক এডস ক্যান্পিইন সম্পর্কে সঠিক ভাবে জানা থাকলে আপনি এই সার্ভিস দিয়ে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এই কাজের প্রচুর চাহিদা রয়েছে।

7. ফেসবুক পিক্সেল সেটাপ করে আয় :

ফেসবুকের অসংখ্য কাজ রয়েছে। তার মধ্যে ফেসবুক পিক্সেল সেটাপ একটি। এই পিক্সেল সেটাপের মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন আপনার পেজে কতজন লোক আসছে। তারা কোন দেশ থেকে আসছে। কয়টা প্রোডাক্ট সেল হলো ইত্যাদি তথ্য এই পিক্সেল সেটাপের মাধ্যমে জানতে পারবেন। বাইয়ারকে এই পিক্সেল সেটাপ করে দিয়েও ফেসবুক থেকে ইনকাম করতে পারেন। পিক্সেল সেটাপ একটি উচ্চ লেভেলের কাজ। এই কাজটি আপনাকে জেনে বুঝে করতে হবে।

8. চ্যাপবট তৈরি করে আয় :

চ্যাপবট তৈরি করা ফেসবুকের একটি কটিনতম কাজ। এই চ্যাটবট তৈরি করার কাজ জানা থাকলে আপনি ফেসবুক থেকে অসংখ্য কাজ করতে পারবেন। এই চ্যাটবট সেটাপের মাধ্যমে অসংখ্য গ্রাহকের প্রশ্নের জবাব দিতে পারবেন। হয়তো আপনার কোনো কোম্পানীর অসংখ্য গ্রাহক রয়েছে সময়ের অভাবে তাদের প্রশ্নের উত্তর দেয়া সম্ভব হয় না। তখন এই চ্যাটবট সেটাপ করা থাকলে চ্যাটবট আপনার কোম্পানীর পক্ষ থেকে প্রশ্ন গুলোর উত্তর দিয়ে দিবে। চ্যাপবট সেটাপ হচ্ছে ফেসবুকে আপনার গ্রাহক কোন প্রশ্ন করলে আপনাকে নিজের মুখে কোন প্রশ্নে উত্তর দিতে হবে না। ফেসবুক নিজে নি্জেই আপনার গ্রাহকের প্রশ্নের উত্তর দিয়ে দিবে। হয়তো ভাবছেন এটা কি করে সম্ভব। অবশ্যই সম্ভব তবে আপনাকে কাজটি সঠিক ভাবে জানতে হবে। এই কাজের পারদর্শি হলে আপনি অসংখ্য কাজ করতে পারবেন এবং ফেসবুক থেকে প্রচুর ইনকাম করতে পারবেন।

আরোও পড়ুন :

ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে করবেন

কিভাবে ওয়েবসাইট গুগলে ইনডেক্স করবেন

শেষ কথা :

পরিশেষ কথা হচ্ছে ফেসবুকে কাজ করার অসংখ্য পথ রয়েছে। ফেসবুক থেকে আয় করার উপায় গুলো সঠিক ভাবে রপ্ত করতে পারলে আপনার কাজের কোনো অভাব হবে না।বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং জগতে অসংখ্য কাজ রয়েছে। যেমন : ওয়েবসাইট তৈরি করা, ওয়েবসাইট ডিভোলপমেন্ট করা, গ্রাফিক্স ডিজাইন করা, ডিজিটাল মার্কেটিং করা, এস ই ও করা, ফেসবুক মার্কেটিং করা ইত্যাদি অসংখ্য কাজ রয়েছে। তার মধ্যে ফেসবুক মার্কেটিং করা সহজ কাজ। তাই আপনি চাইলে উপরের কাজ গুলি সঠিক ভাবে জেনে নিয়ে মার্কেটপ্লেস গুলোতে গিগ তৈরি ও বিট করে আয় করতে পারেন।

Related posts

One Thought to “ফেসবুক থেকে আয় করার উপায় (100% পরিক্ষীত)”

Leave a Comment