ফেসবুক ভিডিও (Facebook Video) ভাইরাল করার 10 টিপস

Facebook Video

ফেসবুক সোসাল মিডিয়ার মধ্যে একটি জনপ্রিয় মাধ্যম। বর্তমানে ফেসবুকে ভিডিও (Facebook Video) আপলোড করে ইনাকম করা যায়। ফেসবুকে বিভিন্ন উপায়ে ইনকাম করা যায়। তবে তার মধ্যে ভাইরাল টপিক হচ্ছে ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করে ইনকাম। সবাই চায় আমার ভিডিও কিভাবে ভাইরাল করা যায়। কিন্তু ভিডিও ভাইরাল হচ্ছে না। ভিডিও ভাইরাল করার কিছু গোপন ট্রিকস এন্ড টেকনিক রয়েছে। সে বিষয় গুলো আজ আমি আপনাদের মাঝে শেয়ার করবো। আপনারা একটু ধর্য্য ধরে আর্টিকেলটি পড়ুন বিস্তারিত জানতে পারবেন। আজকে আমাদের আলোচনার বিষয় হলো ফেসুবক ভিডিও ( Facebook Video ) ভাইরাল করার 10 টিপস। এই টিপস গুলো ফলো করলে আপনার ভিডিও ভাইরাল হতে বাধ্য।

ফেসবুকে ভিডিও (Facebook Video) আপলোড করে ইনকাম :

ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করে ইনকাম করা যায় সত্যি। কিন্তু ভিডিও আপলোড করার কিছু শর্ত রয়েছে। ফেসবুকে লং ভিডিও এবং শর্ট ভিডিও দুই ধরনের ভিডিও আপলোড করে ইনকাম করা যায়। লং ভিডিও হতে হবে 3 মিনিটের উপর আর শর্ট ভিডিও হতে হবে 1 মিনিটের মধ্যে। এই দুই ক্যারাইটারিয়ার ভিডিও আপলোড করে ইনকাম করতে পারবেন। ভিডিও গুলো ফেসবুক পাটনার মনিটাইজেশন পলিসি ও কন্টেন্ট পলিসি মেইনটেন্স করে তৈরি করতে হবে এবং আপলোড করেতে হবে। মনে রাখবেন ফেসবুক পলিসি ভাইলেশন হলে ইনকাম করতে পারবেন না। যে কোন সময় আপনার প্রোফাইল বা পেজ রিস্ট্রাক্টেড করে দিতে পারে। হয়তো দীর্ঘ দিন ধরে ভিডিও আপলোড করছেন কিন্তু পলিসি মেইন্টেস না করার কারনে যে কোনো সময় আপনার প্রোফাইল বা পেজ সাসপেন্ড হয়ে যেতে পারে।তখন হতাশার শেষ থাকবে না। তাই সঠিক নিয়ম ফলো করে ভিডিও আপলোড করুন এবং ইনকাম করুন।

ফেসবুক ভিডিও (Facebook Video) ভাইরাল করার 10 টিপস :

আপনারা হয়তো ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করছেন, যেন ভিডিওতে হাজার হাজার লাইক, কমেন্টস আসে এবং মিলিয়ন মিলিয়ন ভিউস আসে। কিন্তু আশানুরূপ ফল পাচ্ছেন না। কারন সঠিক নিয়মে ভিডিও আপলোড হচ্ছে না। আপনাকে সঠিক নিয়ম ফলো করে ভিডিও আপলোড করতে হবে তাহলে আপনার ভিডিও ভাইরাল হবে এবং মিলিয়ন মিলিয়ন ভিউস আসা সম্ভব। আসুন জেনে নেই ট্রিকস এন্ড টিপস গুলো।

  1. ভিডিও স্টার্টিং আকর্ষনীয় করা :

ভিডিও শুরু করার প্রথম 3 থেকে 5 সেকেন্ড আকর্ষনীয় করে তৈরি করা। যাতে ভিউয়ারস প্রথমে মজা বা আকর্ষন অনুভব করে যার ফলে গোটা ভিডিও দেখতে আকর্ষনবোধ করবে। প্রথমে এমন কিছু লোভনীয় কথা বা টপিক রাখবেন যে শেষে আপনারদের সামনে উপস্থাপন করা হবে। এতক্ষন আপনারা ভিডিওটি দেখতে থাকুন। মজাদার ও আকর্ষনীয় ভাবে উপস্থাপন করার চেষ্টা করবেন। মোটকথা ভিডিওয়ের প্রথমে মজা পাইলে সে ভিজিটর শেষ পর্যন্ত ভিডিও দেখতে চাইবে। তিন মিনিটের ভিডিও এক মিনিট দেখলে আপনার হিসাব কাউন্ড হবে তার নিচে হলে কাউন্ডে আসবে না। এক মিনিটের ভিডিও 30 সেকেন্ড দেখলে যথেষ্ট।

  1. ট্রেন্ডিং বিষয় :

আপনাকে ট্রেন্ডিং বিষয় নিয়ে ভিডিও আপলোড করতে হবে। ট্রেন্ডিং বিষয় হচ্ছে বর্তমানে যে বিয়য় গুলো মানুষের মাঝে বেশি আলোচিত সে ধরনের বিষয় নিয়ে ভিডিও আপলোড করতে হবে। তাহলে দেখবেন মহুর্তের মধ্যে আপনার ভিডিও ভাইরাল হয়ে যাবে। যেমন : বর্তমানের কোন খেলাধুলা- আইপিএল বা বিশ্বকাপ।নায়ক নায়িকাদের কোন চাঞ্চল্যকর কোনো ঘটনা। রাজনৈতিক চাঞ্চল্যকর কোনো ঘটনা ইত্যাদি আলোচিত বিষয় নিয়ে ভিডিও আপলোড করতে হবে। পত্রিকা গুলোতে দেখবেন বর্তমানে কোনটি ট্রেন্ডিং বিষয় চলছে। মোট কথা ট্রেন্ডিং বিষয় নিয়ে ভিডিও তৈরি করলে সহজে ভিডিও ভাইরাল হবে।

  1. আকর্ষনীয় টাইটেল ও থামনিল ব্যবহার করা :

কথায় আছে প্রথমে দর্শন তারপর গুন বিচার। তাই আপনার ভিডিওর টাইটেল ও থামনিল আকর্ষনীয় হতে হবে। টাইটেল ও থামনিল যদি আকর্ষনীয় হয় তাহলে ভিজিটর আপনার ভিডিও দেখতে চাইবে। নচেৎ প্রথমে ফিরে চলে যাবে। ভিডিও এর সাথে সামঞ্চস্য রেখে আকর্ষনীয় টাইটেল দিতে হবে। তারপর ভিডিও এর সাথে মিল রেখে থামনিল তৈরি করতে হবে। থামনিলকে হতে হবে অত্যন্ত এট্রাক্টিভ যা দেখামাত্র ভিজিটর ভিডিও দেখতে আকর্ষনবোধ করে। তাহলে আপনার ভিডিও সহজে ভাইরাল হবে।

  1. স্কয়ার ভিডিও তৈরি করা :

ফেসবুক স্কয়ার ভিডিও রেফার করে। তাই আপনাকে 1:1 সাইজের ভিডিও তৈরি করতে হবে। প্রথমে আপনার মোবাইল দিয়ে 9 : 16 মোডে ভিডিও শুট করে নিবেন। তার ভিডিও এডিটিং করার সময় আপনার ভিডিও স্কায়ার সাইজ করে তৈরি করবেন। আপনার মোবাইল দিয়ে ভিডিও ইডিটিং করতে পারবেন। কাইন মাষ্টার, ক্যাপকার্ড বা ইনশর্ট দিয়ে ভিডিও এডিটিং করতে পারবেন। মোবাইলের জন্য এই সফটওয়ার গুলো বেশ ভালো। মোটামুটি সব ফিচার পাবেন এবং রিলাক্সেবল ভিডিও তৈরি করতে পারবেন।

  1. সঠিক হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করুন :

ফেসবুক হ্যাশটাগ সাপোর্ট করে। তাই ভিডিও আপলোড দেওয়ার সময় ভিডিও রিলেটেড হ্যাশটাগ ব্যবহার করতে হবে। হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করলে আপনার ভিডিও সহজে ভাইরাল হওয়ার সুযোগ থাকে। ভিডিও ডিসক্রেপশনে ট্যাগ ব্যবহার করবেন। ভিডিও আপলোড দেওয়ার সময় কমপক্ষে 4/5 টি হ্যাশ ট্যাগ ব্যবহার করবেন। হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করলে আপনার ভিডিও সহজে সার্চ রেজাল্টে আসবে এবং সহজে সবাই খোজে পাবে। হ্যাশট্যাগ ভিডিও ভাইরাল করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখে।

  1. ফেসবুক ভিডিও দৈর্ঘ্য (Facebook video size) :

ফেসবুজ ভিডিও দৈর্ঘ্য নির্ধারন করতে হবে। লং ভিডিও এর ক্ষেত্রে 3 থেকে 5 মিনিটের ভিডিও হওয়া বাঞ্চনীয়। শর্ট ভিডিও 30 সেকেন্ড হলেই যথেষ্ট। ভিডিও এর দৈর্ঘ্য বেশি হলে ভিজিটর দেখতে চায় না। তাই লং ভিটিও 3 থেকে 5 মিনিটের মধ্যে রাখবেন। তাহলে ভিডিওর ভিউ বেশি হবে। তবে আপনার ভিডিওর বিষয় বস্তু যেন ফুটে উঠে সে দিকে লক্ষ্য রাখবেন। অসামঞ্চস্য পূর্ন ভিডিও তৈরী করবেন না। তাহলে কেউ দেখবে না।

  1. নিজের ভিডিও নিজে দেখবেন না এবং শেয়ার করবেন না :

ফেসবুকে নিজের ভিডিও নিজে দেখবেন না এবং শেয়ার করবেন না। তাহলে ফেসবুক আপনার ভিডিও রেকমমেন্ট করবে না এবং সাজেষ্টে পাঠাবে না। সাজেষ্টে না পাঠালে আপনার ভিডিও কেউ দেখতে পাবেন না। আপনার ভিডিও ভাইরাল হবে না। তাই ভুলেও এ কাজ গুলো করবেন না। তবে ভিডিও ঠিক আছে কিনা তা দেখার জন্য দু’একবার দেখা যেতে পারে। বার বার দেখলে আপনার ভিডিও নিজের দেখার জন্য আপনি প্লান্টি খেতে পারেন।

  1. নিয়মিত ভিডিও আপলোড দিতে হবে :

ফেসবুক ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পূর্ব শর্ত হলো নিয়মিত ভিডিও আপলোড দেওয়া। আপনাকে প্রতিদিন 1টি অথবা ‍2টি ভিডিও আপলোড দিতে হবে। ভিডিও একটি নির্দিষ্ট সময়ে আপলোড দিতে হবে। যদি সকাল 8 টা্য় ভিডিও দেন, তাহলে প্রতিদিন সকাল 8 টার মধ্যে ভিডিও আপলোড দিতে হবে। যদি বিকাল 4 টায় ভিডিও আপলোড দেন, তাহলে প্রতিদিন বিকাল 4 টার মধ্যে ভিডিও আপলোড দিতে হবে। আপনি যদি একদিন পর পর 1টি করে ভিডিও আপলোড দেন তাতেও কোনো সমস্যা নেই। তাহলে একদিন পর পর 1টি করে ভিডিও আপলোড দিতে হবে। আপনি হয়তো একদিনে ‍দুই তিনটি ভিডিও আপলোড দিলেন আর সাত দিন ভিডিও আপলোড দিলেন না তা হবে না। তাতে আপনার কান্খিত সাফল্য পাবেন না। নিয়ম মেইন্টেন্স করে ভিডিও আপলোড দিতে হবে।

পড়ুন :

ফেসবুক প্রোফাইলে ভিডিও আপলোড করে ইনকাম করুন

ফেসবুক থেকে আয় করার উপায়

  1. ভিডিও কোলেবরেশন করুন :

ফেসবুকে নতুন ফিচার যুক্ত হয়েছে কোলেবরেশন । কোলেবরেশন হচ্ছে আপনার ফ্রেন্ড লিস্টে থাকা অন্য কোন আইডিতে আপনার ভিডিও আপলোড দেওয়ার ইনভাইটেশন পাঠানো। সে যদি একসেপ্ট করে তাহলে আপনার ভিডিও তার আইডিতেও আপলোড হয়ে যাবে। তাতে তার ফ্যান, ফলোয়াররাও আপনার ভিডিও দেখতে পাবে। এতে আপনার ভিডিও এর ভিউস বাড়বে এবং সহজে ভিডিও ভাইরাল হওয়ার সুযোগ থাকবে।

  1. ফেসবুক আইডি বা পেজ কাস্টমাইজ করা :

ফেসবুক ভিডিও ভাইরাল করতে হলে আপনার ফেসবুক আইডি বা পেজকে সঠিক ভাবে কাষ্টমাইজ করতে হবে। আপনার ফেসবুক আইডিতে ভিডিও আপলোড করে ইনকাম করতে চাইলে আপনার আইডিকে প্রোফেশনাল মোডে রূপান্তরিত করতে হবে। আর ফেসবুক পেজে ভিডিও আপলোড করে ইনকাম করতে চাইলে আপনার পেজকে সটিক ভাবে এস ই ও করতে হবে এবং ফেসবুক ক্রেয়টর স্টুডিও থেকে ভিডিও আপলোড দিতে হবে। ফেসবুক আইডিকে প্রোফেশনাল মোডে রূপান্তরিত করা বা পেজকে কাস্টমাইজ করা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ইউটিউবে অনেক ভিডিও পাবেন। ইউটিউবের ভিডিও দেখে কাস্টমাইজ করে নিতে পারেন।

শেষ কথা :

ফেসবুক ভিডিও (Facebook Video) আপলোড করে ইনকাম করতে হলে আপনার প্রোফাইলে বা পেজে প্রচুর ভিজিটর আনতে হবে। তাহলে আপনার ভিডিওতে ভিউস বাড়বে। ভিডিও এর ভিউস বাড়াতে হলে আপনার ভিডিওকে ভাইরাল করতে হবে। কিভাবে ভাইরাল করবেন ? ভাইরাল করতে হলে উপরোক্ত নিয়ম ফলো করে যদি আপনার ভিডিও আপলোড দিতে পারেন তাহলে আপনার ভিডিও সহজে ভাইরাল হবে এবং মিলিয়ন মিলিয়ন ভিউস আসবে। সর্বোপরি কথা হচ্ছে ফেসবুকের পলিসি মেনে ভিডিও আপলোড করতে পারলে ফেসবুক থেকে ইনকাম করতে পারবেন। অন্যরা পারলে আপনি কেন পারবেন না। আপনিও আজ থেকে ভিডিও তৈরি করা শুরু করে দিন এবং ফেসবুকে আপলোড দিতে থাকুন ইনকাম আসবেই ইনশাল্লাহ।

3 Thoughts to “ফেসবুক ভিডিও (Facebook Video) ভাইরাল করার 10 টিপস”

Leave a Comment